রমজান মাস উপলক্ষে যোগী আদিত্যনাথ দিলেন এমন নির্দেশ যার পর বিরোধীদের ব্যাথা দ্বিগুন হলো।

মোদী সরকার কেন্দ্রে আসার পর থেকেই ‘সাবকা সাথ সাবকা বিকাশ এই নীতর উপর কাজ করে চলেছে। কিন্তু কংগ্রেস ও অন্যসমস্থ বিরোধী দলগুলি বিজেপিকে মুসলিম বিরোধী দল প্রমান করার জন্য ব্যাস্ত হয়ে থাকে। এই বিষয়ে বিশেষ করে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে বেশি আক্রমণ করে থাকে বিরোধিরা।

বিরোধীরা বার বার দাবি করে থাকে যে যোগী আদিত্যনাথের সরকার মুসলিম বিরোধী সরকার। কিন্তু সম্প্ৰতি যোগী আদিত্যনাথ পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে যা ঘোষণা করেছেন তার পর বিরোধীদের মুখে কালী পড়বে। আসলে গ্রীষ্মকাল এলেই উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন স্থানে কারেন্ট ও জলসমস্যা শুরু হয়ে যায়। আর এখন রমজান মাসের পবিত্র মাস শুরু হয়েগেছে। সেই কথা মাথায় রেখে যোগী আদিত্যনাথ নির্দেশ দিয়েছেন, রমজান মাসের দিনগুলি যাতে প্রদেশের কোনো রাজ্যে জল এবং বিদ্যুতের কোনো অসুবিধা না হয় সেই দিকে নজর রাখতে।

যোগী আদিত্যনাথ নির্দেশ দিয়েছেন পবিত্র রমজান মাসে যেন প্রত্যেক জেলায় জল ও বিদ্যুৎ এর ব্যবস্থা থাকে।

উত্তরপ্রদেশের মুলায়ম ও মায়াবতীর পার্টি বারবার যোগী আদিত্যনাথকে মুসলিম বিরোধী বলে দাবি করে এসেছেন এবং যোগী আদিত্যনাথকে হিন্দুদের সরকার বলে দাবি করে এসেছেন। কিন্তু যোগী আদিত্যনাথ বার বার বলে এসেছেন, ধর্মনিরপেক্ষতার নামে তোষণকে তিনি প্রশয় তিনি দেবেন না। যোগী আদিত্যনাথ কখনোই কোনো ধর্মের বিরোধী নয়।

যোগী আদিত্যনাথ আগেও বলেছিলেন যদি কোনো প্রতিবন্ধক দুর্গাপূজাতে লাগানো হয় তাহলে সেই একই নিয়ম মহরম বা ঈদেও প্রয়োগ করা উচিত। অর্থাৎ সমস্থ ধর্মের প্রতি সমান আচরণে বিশ্বাসী যোগী সেই নীতিতেই কাজ করেন যোগী আদিত্যনাথ। আপনাদের জানিয়ে রাখি, কয়েকমাস আগে যোগী আদিত্যনাথ সমস্থ উত্তরপ্রদেশের সমস্থ ধর্মীয় স্থানে(মন্দির হোক বা মসজিদ) মাইক ব্যবহার ব্যান করেন যা কোনো বিশেষ সম্প্রদায়ের জন্য ছিল না তা সত্ত্বেও বিরোধীরা ভুল খবর প্রচার করে কিছু মুসলিমদের মনে যোগী সরকারের বিরুদ্ধে বিষ ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল।
তবে এবার যে পদক্ষেপ যোগী সরকার নিয়েছে তাতে যে মুসলিম তোষণকারী বিরোধীদের মুখে চুনকালি পড়বে তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই।

Facebook Comments
10K Shares

Comments are closed.