মহান ভারত

বুদ্ধিজীবী ও সেকুলারদের জন্য বার্ণল মুমেন্ট!! প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি RSS এর সভায় বললেন এমন কিছু কথা যা শোনার পর সমালোচনায় মুখর RSS বিরোধীরা।

আর.এস.এস এর প্রধান ঘাঁটি নাগপুর যেটাকে আর এস এস নিজের ঘর বলা যাই সেখান থেকেই মূলত জাতীয়তাবাদের ডাক দিলেন প্রাপ্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি।। তিনি জাতি ধর্ম আলাদা ভাবে না দেখে সহিষ্ণুতার কথাই বললেন।জানলে অবাক হবেন প্রণব মুখার্জী আরএসএস এর সভায় যাওয়ায় কংগ্রেস , প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি নিন্দায় সরব হয়েছেন। কিন্তু এই কংগ্রেস তখন কোনো নিন্দা করেনি যখন কংগ্রেসের বড়ো নেতা মনিশঙ্কর আয়ার দেশের শত্রু পাকিস্তান গিয়েছিলেন। এর কারণ কি সেটা দেশবাসী বেশ ভালো করেই বুঝতে পেরেছে।

আসুন এক নজরে দেখে নিই প্রাপ্তন রাষ্ট্রপতি ঠিক কী বললেন –

আমাকে এখনে আমন্ত্রণ করা হয়েছে এবং আমি খুব খুশি এই আমন্ত্রণ পেয়ে।। আমাকে অত্যন্ত সম্মানের সহিত এখানে আনা হয়েছে। আমি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি এত বড়ো একটা মঞ্চে আসতে পারার জন্য।

আমি এখনে মূলত রাষ্ট্র-জাতীয়তাবাদ নিয়ে আমার নিজের মনের ভাবনা প্রকাশ করতে এসেছি।।  এসেছি দেশপ্রেম নিয়ে নিজের ভাবনা প্রকাশ করতে।। দেশের উন্নতিলাভের ব্যাপারে কিছু বলতে এসেছি।। একজন ভারতীয় নাগরিক হিসেবে নিজের দায়িত্ব সচেতনতা সম্মেন্ধে  কিছু বলতে এসেছি।

সহিষ্ণুতা জাতীয়তাবাদ নিয়েই আমদের এই মহান দেশ ভারতবর্ষ । এই গুলি ছাড়া ভারতবর্ষকে  ভাবা যায় না।। এই সব নিয়েই আমরা এত দিন এতটা পথ এগিয়েছি।।  সহিষ্ণুতা-বহুত্ববাদ-বিবিধতা এই সবই আমদের শক্তি।।  এই গুলি ছাড়া ভবিষ্যতে এগিয়ে যাওয়ার কথা আমরা ভাবতে পারি না।।

প্রাচীনকাল থেকেই ভারত ছিল সমগ্র বিশ্ব কাছে শিক্ষাকেন্দ্র।। ভারতের বহু শিক্ষাবিদ প্রাচীন কাল থেকেই অনেক বই লিখে আসছেন।। সেই সময় উল্লেখযোগ্য চানক্য লিখেছিলেন অর্থশাস্ত্র।।

ভারতের এই সভ্যতা  ৫০০০ বছর ধরে ধারাবাহিক।। ভারতের সভ্যতা কখন কাউকে বিভক্ত করতে শিখায় নি।। ভারতের জাতীয়তাবাদ  ভাষা- ধর্ম -জাতি কে সাথে নিয়েই চলা শিখায়।। ভারতের সংবিধান জাতীয়তাবাদ প্রেমিক।। বহুত্ববাদ ও সহিষ্ণুতাই ভারতের মূল
আত্মা।। আমি ধর্মনিরপেক্ষতায় বিশ্বাস করি।। ভারতের সংবিধান কখনই এক ধর্ম এক ভাষার কথা বলে না।। এই মহান দেশ থেকে হিংসা ঘৃনা দূর করতে হবে।। হিংসা ক্রধ বেড়েই চলেছে তার থেকে সরে আসাই বুদ্ধিমানে কাজ হবে।। যেমন অনেক বছর আগে ভারতে রাম এই কথায় বলে গেছেন।। এবং আমি মনে করি একমাত্র আলোচনার মাধ্যমেই এই গুলি এই বিভেদ ঘোচানো সম্ভব।

এর আগে বক্তব্য রাখেন সংঘ প্রধান মোহন ভাগবত। আসুন দেখে নেওয়া যাক তিনি কী বললেন –

আমন্ত্রণ গ্রহন করার জন্য প্রণব কে ধন্যবাদ। প্রণব আমাদের আমন্ত্রণে যে এখনে এসেছেন এতে আমরা খুব খুশি হয়েছি।। আমদের এই মঞ্চে প্রণবকে পেয়ে সত্যি আমরা খুব আনন্দিত।

তিনি বলেন প্রণব আগেও যেমন ছিল এখন তেমনি থাকবেন।। আমদের এই আনুষ্ঠানে এসেছেন বলে তিনি বদলে যাবেন না।। প্রনবের এখনে আসা নিয়ে যে বিতর্ক হয়েছে চারিদিকে সেটা একদমই  গ্রহন যোগ্য নয়।। এটা একদমই তাঁর ব্যক্তিগত বিষয়।

আমদের কাছে কেও আলাদা নয়। সমগ্র জাতিকে নিয়েই পথ চলা আমদের মূল লক্ষ্য। সবাইকে নিয়েই চলতে চায় সঙ্ঘ। শুধু হিন্দু নয় সারা ভারতকেই সুসংগঠিত করা হল সঙ্ঘের মূল লক্ষ্য। সবার মধ্যেই মতভেদ থাকবে কিন্তু মত বিনিময় চলবে।

 ভাগবত বলেন যে আমদের সমাজে আমরা কেও কারুর শত্রু নয়। আমদের সবার পূর্বপুরুষ এক। এত বড়ো দেশ এখনে বৈচিএের মধ্যে ঐক্যই আমদের পরিচয়। ভারতে জন্মানো সবাই ভারত মাতার সন্তান। এই বলে তিনি তার বক্তব্য শেষ করেন।

Facebook Comments

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Open

Close